Sports Bangla

ব্রাডম্যানের পাশে ইউনিস

ব্রাডম্যানের পাশে ইউনিস

ব্রাডম্যানের পাশে ইউনিস
মে ০৬
১৩:৩৬ ২০১৫

ambia flatবাংলাদেশের বিপক্ষে অসাধারণ এক সেঞ্চুরি করে কিংবদন্তি স্যার ডোনাল্ড ব্রাডম্যানের পাশে নাম লিখিয়েছেন পাকিস্তানের ইউনিস খান। বুধবার ঢাকা টেস্টের প্রথম দিন ক্যারিয়ারের ২৯তম টেস্ট সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছেন এই অভিজ্ঞ মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান। আর সেই সুবাদে ব্রাডম্যানের ২৯ সেঞ্চুরির মাইল ফলক স্পর্শ করেছেন তিনি। ক্রিকেটের ইতিহাসের সবচেয়ে সফল ব্যাটসম্যান অস্ট্রেলিয়ান কিংবদন্তি ব্রাডম্যান। তার করা ২৯ সেঞ্চুরি থেকে এক ধাপ পিছনে থেকে ঢাকা টেস্ট খেলতে নেমেছিলেন ইউনিস খান। শেষ অবদি ঢাকার মাটিতে ব্র্যাডম্যানকে ছুঁয়ে ফেলেছেন তিনি। ক্যারিয়ারের ৯৮তম টেস্ট খেলতে নেমে ২৯ সেঞ্চুরির এই মাইলফলকে পৌঁছেছেন ইউনিস। ব্রাডম্যান অবশ্য ২৯ সেঞ্চুরি করেছিলেন মাত্র ৫২টি টেস্ট খেলে।

টেস্ট সেঞ্চুরির সংখ্যায় সবার উপরে অবস্থান ভারতের লিটল মাস্টার শচিন টেন্ডুলকারের। ২০০ ম্যাচ খেলে তার সেঞ্চুরি সংখ্যা ৫১টি। এরপরের স্থানে থাকা দক্ষিণ আফ্রিকার জ্যাক ক্যালিস ১৬৬ টেস্ট খেলে ৪৫ সেঞ্চুরি পেয়েছেন। এ ছাড়া অস্ট্রেলিয়ার রিকি পন্টিং ১৬৮ ম্যাচে ৪১টি, শ্রীলঙ্কার কুমারা সাঙ্গাকারা ১৩০ ম্যাচে ৩৮টি এবং ভারতের রাহুল দ্রাবিড় ১৬৪ ম্যাচে ৩৬টি সেঞ্চুরি করেছেন। এ ছাড়া ভারতের ব্যাটিং কিংবদন্তি সুনীল গাভাস্কার, ওয়েস্ট ইন্ডিজের ‘ক্রিকেটের বরপুত্র’ ব্রায়ান লারা ও শ্রীলঙ্কার ব্যাটিং মাস্টার মাহেলা জয়াবর্ধনে ৩৪টি করে সেঞ্চুরি করেছেন। ৩০টি করে সেঞ্চুরি রয়েছে অস্ট্রেলিয়ার ম্যাথু হেইডেন ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের শিবনারায়ণ চন্দরপলের।

Kwality (1)টেস্ট ক্রিকেটে অভিজ্ঞতায় সমৃদ্ধ ইউনিস খান খুলনায় ব্যর্থ হলেও ঢাকায় নিজের কাজটা ঠিক-ঠাক করে নিয়েছেন। ১৯৫ বলের ইনিংসে ১১ চার ও ৩ ছক্কায় ১৪৮ রানের ইনিংস খেলেছেন তিনি। শেষ বিকালে মোহাম্মদ শহীদের বলে কাট করতে গিয়ে শুভাগত হোমের তালুবন্দী হয়েছেন ইউনিস।

ঢাকা টেস্টের প্রথম ইনিংসে সেঞ্চুরির সুবাদে ইউনিস খান বাংলাদেশের বিপক্ষে ৩টি সেঞ্চুরি করলেন। স্বাগতিকদের বিরুদ্ধে ইউনিস খানের সর্বোচ্চ সংগ্রহ অপরাজিত ২০০ রান। ২০১১ সালে চট্টগ্রামে তিনি বিধ্বংসী এই ইনিংস খেলেছিলেন। এর আগে ২০০২ সালে বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রথম সেঞ্চুরি পেয়েছিলেন তিনি। সেবার ১১৯ রানের ইনিংস খেলেছেন। চলতি টেস্টের প্রথম ইনিংসসহ ৭ টেস্টের ১১ ইনিংসে বাংলাদেশের বিপক্ষে মোট ৫৯৯ রান সংগ্রহ করেছেন পাকিস্তানের এই বর্ষীয়ান ব্যাটিং স্তম্ভ। যা দুই দলের মুখোমুখিতে যে কোনো ব্যাটসম্যানের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ স্কোর। সবার উপরে রয়েছেন পাকিস্তানের ওপেনার মোহাম্মদ হাফিজ। তার সংগ্রহ ৭ ম্যাচের ১১ ইনিংসে মোট ৬৫০ রান। ৩ নাম্বারে রয়েছেন পাকিস্তানেরই তৌফিক ওমর, ৫৫৮ রান নিয়ে।

এ ছাড়া বুধবার বাংলাদেশের বিপক্ষে তৃতীয় উইকেট জুটিতে আগের রেকর্ড ভেঙে নতুন রেকর্ড গড়েছে পাকিস্তান। ২০১১ সালে তৌফিক ওমর ও ইউনিস খান মিলে ৯৫ রানের জুটি গড়েছিলেন। ৪ বছর পর ইউনিস খান ও আজহার আলী মিলে ২৫০ রানের জুটি গড়ে নয়া রেকর্ডের জন্ম দিয়েছেন। টেস্টে তৃতীয় উইকেটে সর্বোচ্চ রানের জুটি অবশ্য শ্রীলঙ্কার দখলে। ২০০৬ সালে কুমারা সাঙ্গাকারা ও মাহেলা জয়াবর্ধনে মিলে ৬২৪ রানের জুটি গড়েছিলেন। অন্যদিকে, তৃতীয় উইকেটে পাকিস্তানের সর্বোচ্চ জুটি ৪৫১। ১৯৮৩ সালে জাভেদ মিয়াঁদাদ ও মুদাসসের নজর মিলে এই জুটি গড়েছিলেন চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতের বিপক্ষে।

লেখক সম্পর্কে

স্পোর্টসবাংলা ডেস্ক

স্পোর্টসবাংলা ডেস্ক

এই ধরনের আরো লেখা

০ মন্তব্য

এখনো কোনো মন্তব্য আসেনি!

এই মুহূর্তে এখানে কোনো মন্তব্য নেই, আপনি কি একটি মন্তব্য দেবেন?

মন্তব্য লিখুন

মন্তব্য লিখুন

আর্কাইভ

সেপ্টেম্বর ২০২০
সোমমঙ্গলবুধবৃহস্পতিশুক্রশনিরবি
« আগস্ট  
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০