Sports Bangla

বোল্টের সাফল্যের রহস্য ভুল!!!

বোল্টের সাফল্যের রহস্য ভুল!!!

বোল্টের সাফল্যের রহস্য ভুল!!!
আগস্ট ৩১
০৩:৫১ ২০১৫

Explore1বেইজিংয়ে সদ্য সমাপ্ত বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে একশ ও দুইশ মিটার দৌড়ে প্রথম হয়ে আবারো আলোচনায় ক্যারিবিয়ান অ্যাথলিট উসাইন বোল্ট। ২০০৮ সাল থেকে শুরু করে বোল্ট যতগুলো দৌড় প্রতিযোগিতায় নাম লিখিয়েছেন তার মধ্যে একটি ছাড়া প্রতিটিতেই প্রথম হয়েছেন তিনি। একমাত্র ব্যর্থতাটির পেছনে ছিল ‘ভুল শুরু’র কারণে বাদ পড়ে যাওয়া।

শুধু প্রতিভা? শুধু প্র্যাক্টিস? শুধু নিয়মানুবর্তিতা? নাকি এর পিছনে রয়েছে অন্য কোনও কারণ? সাফল্যের রহস্য ফাঁস করতে গিয়ে বোল্ট নিজে মুখে বলছেন, ‘আমাদের দেশে ট্র্যাক অ্যান্ড ফিল্ড স্পোর্টসের মান এতটাই উঁচু তারে বাঁধা যে, আমরা ভালো করতে বাধ্য হই। জ্যামাইকায় ১০০ মিটারের নাগাল পেতে গেলে আপনাকে কম করে ৯.৯ সেকেন্ডে প্রতিটা রেস শেষ করতে হবে। প্রতিযোগীরা খুব প্রতিভাবান। সেখানে আপনাকে টিকে থাকতে গেলে ভালো করতেই হবে।’

Bright-sports-shop_bigব্রিটেনের সাবেক দৌড়বিদ ক্রেইগ পিকারিং বলছেন, বোল্ট জন্মগত ভাবেই সুবিধাজনক অবস্থায় আছে। ৬ ফুট ৫ ইঞ্চি লম্বা সে। ‘অতিরিক্ত লম্বা পা হওয়ায় শুরুতে গতি তুলতে পারে না সে। কিন্তু যখন গতির শীর্ষে পৌঁছে যায় তখন তার গতি হয় সবার চাইতে বেশি, কারণ লম্বা পা থাকার দরুন অন্যদের চাইতে কম ধাপ দিলেই অন্যদের সমান বা বেশি গতি সে পায়’।

‘সাধারণভাবে ৪১ ধাপেই ১শ মিটার দৈর্ঘ্য অতিক্রম করে বোল্ট। তার মানে তার ধাপ দীর্ঘ। আর এই দীর্ঘ ধাপই আসলে পার্থক্য গড়ে দেয়’, বলছেন পিকারিং।

গবেষণা দেখাচ্ছে, অপেশাদার দৌড়বিদরা একশো মিটার দৌড় শেষ করতে যেখানে ৫০ থেকে ৫৫টি ধাপ দেয় সেখানে পেশাদার দৌড়বিদেরা দেয় ৪৫টি ধাপ। লাফবরো বিশ্ববিদ্যালয়ের ড. স্যাম অ্যালেন বলেন, পেশাদার দৌড়বিদদের পেশীতন্তুর গঠনই আলাদা। আর এরা দৌড়ের সময় মাটিতে যতক্ষণ থাকে তার চাইতে অনেক বেশি সময় থাকে শূন্যে, যেটা তাদেরকে সামনের দিকে দ্রুত ঠেলে দিতে সাহায্য করে।

‘শতকরা ষাট ভাগ সময় শূন্যে থাকেন পেশাদার দৌড়বিদেরা’, বলছেন মি. অ্যালেন। কিন্তু প্রসঙ্গ যখন বোল্ট তখন ব্যাপারটার মধ্যে নিশ্চিতভাবেই আরো আলাদা কিছু আছে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, বোল্টের এই সাফল্যের পিছনে রয়েছে জ্যামাইকার জাতীয় স্কুল চ্যাম্পিয়নশিপের অবদান। যাকে ‘দ্য চ্যাম্পস’ বলে উল্লেখ করেন জ্যামাইকানরা। ৩০ হাজারের মতো দর্শক প্রতি বছর যে মিট দেখার জন্য মুখিয়ে থাকেন।

সম্প্রতি রিচার্ড মুর জামাইকার এই সাফল্য নিয়ে একটি বই লিখেছেন। মুরের কথায়, ‘এর থেকে ভালো স্কুল স্পোর্টস সারা বিশ্বে হয় কি না সন্দেহ। এই মিটের মান অত্যন্ত উন্নতঅ। ছোট থেকে এই মিটের মধ্যে দিয়ে যারা বড় হয়, তারা ভবিষ্যতে যে খুব ভালো করবে, এটাই তো স্বাভাবিক।’

জ্যামাইকাতে স্প্রিন্টাররা বড় তারকা তাদের নাম প্রায়ই উঠে আসে সংবাদমাধ্যমের পাতায়। দেশের বিভিন্ন জায়গায় বড়বড় কাটআউট চোখে পড়ে। বাসের পিছনের বিজ্ঞাপনে তাদের ছবি। স্থানীয় সংবাদপত্র ‘জ্যামাইকা গ্লেনার’-এর সাংবাদিক আঁদ্রে লোর কথায়, ‘ফুটবল এ দেশে খুব জনপ্রিয়, কিন্তু ট্র্যাক অ্যান্ড ফিল্ড স্পোর্টস হল রাজার রাজা ! ২০০৮ সালে বেইজিংয়ে বোল্টের সাফল্যের পর তো এর জনপ্রিয়তা ধরা ছোঁয়ার বাইরে। বোল্ট, আসাফা পাওয়েল এবং ফ্রেজার-প্রাইসের যা জনপ্রিয়তা, তার কাছাকাছি কিছুটা পৌছতে পারেন ক্রিকেটার ক্রিস গেইল। অন্য কারও কথা মনে হয় না।’

লো-ও মেনে নিচ্ছেন, স্কুল থেকে ট্র্যাক অ্যান্ড ফিল্ড স্পোর্টসের উপর বিশেষ নজর দেওয়া হয় বলেই পরবর্তী কালে বোল্টের মতো অ্যাথলেট দেশ পেয়ে থাক।  তার কথায়, ‘স্কুল থেকে জামাইকার বেশির ভাগ ছেলে মেয়েই আগে ডন কোয়্যারিকে সামনে রেখে এগোত। এখন ওদের আইডল বোল্ট।’ বোল্ট-ইয়োহান ব্লেক-পাওয়েল এবং ফ্রেজার প্রাইস যার কোচিংয়ে উঠে এসেছেন, সেই গ্লেন মিলস এখন জাতীয় কোচ।

বেইজিংয়ে বিশ্ব মিটের সাফল্য উপভোগ করছেন মিলস। তার কথায়, ‘আমরা পারফেকশন অর্জন করতে চাই। কিন্তু, সেটা খুব কঠিন কাজ। শুধু ক্রীড়াবিদই নয়, আমি ওদের ভালো মানুষ হওয়ার কথা বারবার বলি। ওদের সব সময়ই বলি ট্র্যাকের বাইরেও একটা জীবন রয়েছে। এটা ওদের স্ট্রেসমুক্ত থাকতে সাহায্য করে।’

শেষ বিচারে যা দাঁড়াল, ভালো কোচিং, নিয়মানুবর্তিতা, প্রতিভার পাশে স্কুল স্তর থেকে লক্ষ্য স্থির রেখে এগোনোর মানসিকতাই বোল্টকে আলাদা করে দিয়েছে। স্কুল স্তর থেকে দুর্দান্ত প্রতিযোগিতা আসলে বোল্ট-পাওয়েলদের মতো স্প্রিন্টারের ৮০ শতাংশ ভবিষ্যৎ তৈরি করে দেয়। বাকি ২০ শতাংশ কাজটা করে সঠিক পথে পরিশ্রম।

লেখক সম্পর্কে

স্পোর্টসবাংলা ডেস্ক

স্পোর্টসবাংলা ডেস্ক

এই ধরনের আরো লেখা

০ মন্তব্য

এখনো কোনো মন্তব্য আসেনি!

এই মুহূর্তে এখানে কোনো মন্তব্য নেই, আপনি কি একটি মন্তব্য দেবেন?

মন্তব্য লিখুন

মন্তব্য লিখুন

আর্কাইভ

এপ্রিল ২০২০
সোমমঙ্গলবুধবৃহস্পতিশুক্রশনিরবি
« আগস্ট  
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০