Sports Bangla

দেরিতে হলেও বুঝতে পেরেছে!

দেরিতে হলেও বুঝতে পেরেছে!

দেরিতে হলেও বুঝতে পেরেছে!
এপ্রিল ০৪
১৩:২২ ২০১৫

Kwality (1)দুর্নীতিতে আকণ্ঠ নিমজ্জিত বিশ্ব ক্রিকেটের শীর্ষ প্রশাসক এন শ্রীনিবাসন। যে কারণে তাকে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই) থেকে এক কথায় ঘাড় ধাক্কা দিয়ে বের করে দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। এমনকি তার হাতে যেন ভারতের ক্রিকেট আর না পড়ে, সে পথও বন্ধ করে দিয়েছে আদালত। বিসিসিআইর নির্বাচনে অযোগ্য ঘোষণা করা হয় তাকে। অথচ, এতবড় দুর্নীতিবাজ এবং ক্ষমতালোভির হাতেই কি না এখন পুরো বিশ্বের ক্রিকেট। তার হাতে ভদ্রলোকের খেলা বলে পরিচিত ‘ক্রিকেট’ যে কতটা নাজুক অবস্থার মধ্যে রয়েছে, তা বোদ্ধারা ঠিকই বুঝতে পারছেন। ক্ষমতার লোভে বিশ্বকাপের ফাইনালের দিন কয়েকটি খোঁড়া অজুহাত দাঁড় করিয়ে দিয়ে, আইসিসির সংবিধান লঙ্ঘণ করে বিজয়ী দলের অধিনায়কের হাতে শিরোপা তুলে দিয়েছিলেন শ্রীনি।

বিষয়টা যে পুরো ভারতের জন্যই কত বড় অসম্মানের এবং অভদ্রতার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে, তা যেন দেরিতে হলেও বুঝতে পেরেছে কলকাতার প্রভাবশালী আনন্দবাজার পত্রিকা। শ্রীনিবাসনের ক্ষমতার লোভের সামনে ভারতেরই যে সম্মানহানী হয়েছে সেটা জানিয়ে আজ (শনিবার, ৪ এপ্রিল, ২০১৫) সম্পাদকীয় প্রকাশ করেছে আনন্দবাজার পত্রিকা। দ্বিতীয় সম্পাদকে ‘নিছক অভদ্রতা’ শিরোনামে শ্রীনিবাসন আইসিসিকে কী কী অভদ্রতা করে বেড়াচ্ছেন, সাধু ভাষায় তার সুন্দর বর্ণনা দিয়েছে কলকাতার পত্রিকাটি। পাঠকদের জন্য হুবহু আনন্দবাজার পত্রিকার সম্পাদকীয়টি তুলে ধরা হল…

নিছক অভদ্রতা…

“ক্রিকেট নামক ঔপনিবেশিক খেলাটির ভবিষ্যৎ কী, সে বিষয়ে বিলক্ষণ সংশয়ের অবকাশ আছে। যতই অস্ট্রেলিয়া বিশ্বকাপ জয়কে নিয়ম বানাইয়া ফেলুক, খেলাটি এখন মূলত ভারতীয় উপমহাদেশের। সেই চারটি দেশের মধ্যে আবার নিছক বাজারের জোরেই ভারতের বাহুবল বিসদৃশ রকম বেশি। বিশ্বমঞ্চে সেই বাহুবল প্রদর্শনে ভারত কিছুমাত্র কুণ্ঠিতও নহে।

ambiagroupকিন্তু, ‘ভদ্রতা’ বস্তুটি যে এখনও বিলুপ্ত হয় নাই, কথাটি মনে না রাখিলে মুশকিল। নারায়ণস্বামী শ্রীনিবাসন এই কথাটি বেমালুম ভুলিয়া গিয়াছেন। বিজয়ী দলের হাতে বিশ্বকাপ তুলিয়া দেওয়ার সম্মানের মোহে তিনি কোনও নিয়মের তোয়াক্কা করেন নাই, ভদ্রতার মুখোসটুকুরও ধার ধারেন নাই। প্রথা অনুযায়ী, বিজয়ী দলের অধিনায়কের হাতে কাপ তুলিয়া দেওয়ার অধিকার ক্রিকেটের আন্তর্জাতিক সংস্থা আইসিসি-র প্রেসিডেন্টের। সেই পদে ছিলেন বাংলাদেশের মুস্তাফা কামাল।

শ্রীনিবাসন সম্ভবত ভাবিয়াছেন, তিনি উপস্থিত থাকিতে বাংলাদেশের ন্যায় ‘অকিঞ্চিৎকর’ দেশের প্রতিনিধি এই সম্মান পাইবেন, তাহা হইতে পারে না। অতএব, কিছু কুযুক্তি খাড়া করিয়া তিনি কামালের অধিকারটি ছিনাইয়া লইলেন ও পুরস্কার প্রদানের গুরুদায়িত্ব স্বস্কন্ধে লইলেন। মাঠে উপস্থিত দর্শকরা তাঁহাকে যে ভঙ্গিতে ‘অভ্যর্থনা’ জানাইয়াছে, তাহা উৎসাহব্যঞ্জক নহে। কিন্তু শ্রীনিবাসন সম্ভবত দর্শকদের উষ্ণ অভ্যর্থনার অপেক্ষায় ছিলেন না। কাপ হাতে ছবি তুলিয়াই তিনি খুশি।

Exploreভারত-বাংলাদেশ কোয়ার্টার ফাইনালে আম্পায়ারিং-এর মান লইয়া প্রশ্ন তোলা মুস্তাফা কামালের উচিত হইয়াছিল কি না, তাহা ভিন্ন প্রশ্ন। অস্বীকার করিবার উপায় নাই, আইসিসি-র প্রেসিডেন্ট পদে থাকিয়া এই কাজটি করা যায় না। যত ক্ষণ তিনি এমন একটি পদে আসীন, তত ক্ষণ তাঁহার কোনও বক্তব্যই ব্যক্তিমাত্রের নহে, সেই পদের। তাঁহার নিকট বাক-সংযম প্রত্যাশিত ছিল। কিন্তু, শ্রীনিবাসন যে ভঙ্গিতে কামালের ভুলের বিচার করিয়া শাস্তি বিধান করিয়া ফেলিলেন, তাহা নিন্দার অতীত। আইসিসি পাড়ার ক্লাব নহে। তাহার সংবিধান আছে।

কোনও পদাধিকারী অধিকারভঙ্গের কাজ করিলে কিংকর্তব্য, তাহা সেই সংবিধানের পথনির্দেশ মানিয়াই স্থির করা বিধেয়। তাহার নির্দিষ্ট পদ্ধতি রহিয়াছে। শ্রীনিবাসন প্রায় খাপ পঞ্চায়েত চালাইবার ভঙ্গিতে কামালের বিচার সারিয়া ফেলিলেন। দেখা গেল, তিনিই বাদীপক্ষের উকিল, তিনিই বিচারক। যেহেতু ক্রিকেটে ভারতের আর্থিক পেশিবল সর্বাধিক, অন্য কোনও পক্ষ তাঁহার এই অগণতান্ত্রিক আচরণের প্রতিবাদও করিলেন না। ইহাতে শুধু শ্রীনিবাসনের ব্যক্তিগত উচ্চাশা পূর্ণ হইল মাত্র। ক্রিকেটের স্বার্থরক্ষা হইল না, আইসিসি-র সম্মানও বাঁচিল না।

অবশ্য, শ্রীনিবাসনের নিকট সম্ভ্রমজনক আচরণের প্রত্যাশা করিবার উপায়ও নাই। তাঁহার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ উঠিবার পরেও তিনি যে ভাবে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের ক্ষমতা আঁকড়াইয়া ছিলেন, এবং তাহার ফলে দেশের শীর্ষ আদালতকে যে ভাষায় তাঁহাকে তিরস্কার করিতে হইয়াছে, তাহাতে স্পষ্ট, তিনি সম্মানের পরোয়া করেন না। ক্ষমতাই তাঁহার একমাত্র কাম্য। তাঁহাকে নিয়ন্ত্রণ করা প্রয়োজন। ভারতের আর্থিক শক্তি বা আইপিএল-এর আকর্ষণের নিকট নতিস্বীকার না করিয়া আইসিসি-র সদস্যদের উচিত ছিল, এই অন্যায় আচরণের প্রতিবাদ করা। ক্রিকেটকে বাঁচাইবার আর কোনও পথ নাই।”

লেখক সম্পর্কে

স্পোর্টসবাংলা ডেস্ক

স্পোর্টসবাংলা ডেস্ক

এই ধরনের আরো লেখা

০ মন্তব্য

এখনো কোনো মন্তব্য আসেনি!

এই মুহূর্তে এখানে কোনো মন্তব্য নেই, আপনি কি একটি মন্তব্য দেবেন?

মন্তব্য লিখুন

মন্তব্য লিখুন

আর্কাইভ

সেপ্টেম্বর ২০২০
সোমমঙ্গলবুধবৃহস্পতিশুক্রশনিরবি
« আগস্ট  
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০