Sports Bangla

চট্টগ্রাম টেস্টে ইতিহাস বাংলাদেশের

চট্টগ্রাম টেস্টে ইতিহাস বাংলাদেশের

চট্টগ্রাম টেস্টে ইতিহাস বাংলাদেশের
নভেম্বর ১৬
০৮:৩৭ ২০১৪

ambiagroupঢাকা ও খুলনার পর চট্টগ্রাম টেস্টেও দাপুটে জয় তুলে নিয়েছে বাংলাদেশ। এদিন চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে সফরকারী জিম্বাবুয়েকে ১৮৬ রানে হারিয়েছে মুশফিক বাহিনী। সেই সাথে তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজে প্রতিপক্ষকে ৩-০ ব্যবধানে হোয়াইটওয়াশ কিংবা বাংলাওয়াশের লজ্জা উপহার দিল স্বাগতিকরা।

রোববার চট্টগ্রাম টেস্টের শেষ দিনের রোমাঞ্চে সম্ভাব্য ফল হিসেবে ‘তিন দুয়ারি’ ছিল বাংলাদেশ ও জিম্বাবুয়ের মধ্যকার সিরিজের তৃতীয় এই ম্যাচটি। দাঁড়িপাল্লায় জয়ের পাল্লাটা মুশফিকদের দিকে ঝুঁকে ছিল বেশি। কিন্তু ঔপনিস্যাকিরে কলম কিংবা ক্রিকেটের চরম নাটকীয়তার মোড়কে তা জিম্বাবুয়ের দিকেও ‘পল্টি’ নিতে পারত! অবশ্য তার জন্য টেস্ট ক্রিকেটের সর্বোচ্চ রানের লক্ষ্য তাড়া করে নতুন একটা বিশ্বরেকর্ড উপহার দিতে হতো ব্রেন্ডন টেলর বাহিনীকে। তা শেষ পর্যন্ত করে দেখাতে পারেননি সিকান্দার রাজা-হ্যামিল্টন মাসাকাদজারা। কোনো রূপকথারও জন্ম হয়নি।

বাংলাদেশের ছুঁড়ে দেয়া ৪৪৮ রানের লক্ষ্য তাড়ায় জিম্বাবুয়ে টেস্টের চতুর্থ দিন শেষে অর্থাৎ, শনিবার দিন শেষে নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ১৯ ওভার ব্যাট করে ১ উইকেট হারিয়ে ৭১ রান সংগ্রহ করে। তখন জয়ের জন্য অবশিষ্ট ৯ উইকেটে টেস্টের শেষ দিনে ৩৭৮ রান দরকার ছিল জিম্বাবুয়ের। পক্ষান্তরে বাংলাদেশের দরকার নয়টি উইকেট। এরপরও রোববার টেস্টের পঞ্চম ও শেষ দিনে আগের দিনের দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যান হ্যামিল্টন মাসাকাদজা (২৬) ও সিকান্দার রাজা (৪৬) দুলঙ্ঘ্য হিমালয় পাড়ি দেয়ার পণ করে উইকেটে নামেন।

Bright-sports-shop_bigঅবশ্য তাদের পণ শেষ পর্যন্ত সফল হয়নি। নতুন দিনের শুরুতেই ফিরে যান অভিজ্ঞ মাসাকাদজা (৩৮)। ২৬.৩ ওভারে দলীয় ৯৭ রানে শুভাগত হোমের শিকার হন তিনি। ৩১তম ওভারে গিয়ে হুমকি হয়ে ওঠা সিকান্দার রাজাও ‘পার্টটাইম’ বোলার হোমেরই শিকার। তারপরই পর্দায় আর্বিভাব তরুণ স্পিনার জোবায়ের হোসেনের। ১৪ রানের ব্যবধানে তার শিকার হয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরেন ব্রেন্ডন টেলর (২৪) ও এলটন চিগম্বুরা (৯৫)। ষষ্ঠ উইকেটে গিয়ে দৃশ্যপটের পরিবর্তন আসে।

জিম্বাবুয়ের শেষ স্বীকৃত জুটি হিসেবে বাংলাদেশের জয়ের পথে বাধা সৃষ্টি করেন রেজিস চাকাভা ও ক্রেইগ আরভিন। এই জুটি ভাঙে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের হাতে। তখন স্বস্তির সুবাতাস গোটা জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে। কিন্তু অস্টম উইকেট জুটিতে গিয়ে পানিয়াঙ্গারাকে নিয়ে বাংলাদেশকে ভালোই জ্বালায় চাকাভা। শেষে পেসার রুবেল হোসেনে পরিত্রাণ। পরে টাইগারদের জয়ের জন্য বাকি আনুষ্ঠানিকতাটুকু সারেন শফিউল ইসলাম।

দেশের ক্রিকেট ইতিহাসে অম্লান হয়ে থাকতে জিম্বাবুয়ের লেজকে কেটে দেন বাংলাদেশের ক্ষীণদেহী এই পেসার। আর নাম লেখান দেশের ক্রিকেট ইতিহাসের অভিজাত এক ক্লাবে। জিম্বাবুয়ে চট্টগ্রাম টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে ২৬২ রান করে অলআউট হয়। ৮৫ ওভার ব্যাট করে তারা। বাংলাদেশের পক্ষে দুটি করে উইকেট নেন রুবেল হোসেন, শফিউল ইসলাম, জুবায়ের হোসেন ও শুভাগত হোম।

২০০০ সালে ভারতের বিপক্ষে টেস্ট অভিষেক পর থেকে টেস্ট ক্রিকেট ইতিহাসে বড় কোনো সাফল্য নেই বাংলাদেশের। সেক্ষেত্রে ১৪ বছরের টেস্ট ইতিহাসে এটি হবে ঐতিহাসিক একটি দিন। এটি ৮৮ টেস্টে সপ্তম জয় টাইগারদের। এছাড়া ১১টি টেস্টে ড্র করার কৃতিত্ব দেখিয়েছে বাংলাদেশ।

এর আগে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ১৪ টেস্ট ৪টি জয় ড্র তিনটি হেরেছে ৬টি। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ১২ টেস্টে জয় ২টি, ড্র ২টি, হেরেছে ৮ টেস্ট। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ১৬ টেস্ট ২টি ড্র হেরেছে ১৪টি। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ১১ টেস্ট ড্র তিনটি হেরেছে ৮টি। ভারতের বিপক্ষে ৭ টেস্ট ড্র একটি, বাকিগুলোতে হার। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৮ টেস্ট জয় নেই। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ৮ টেস্ট জয় নেই। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৪ টেস্ট জয় নেই।

লেখক সম্পর্কে

স্পোর্টসবাংলা ডেস্ক

স্পোর্টসবাংলা ডেস্ক

এই ধরনের আরো লেখা

০ মন্তব্য

এখনো কোনো মন্তব্য আসেনি!

এই মুহূর্তে এখানে কোনো মন্তব্য নেই, আপনি কি একটি মন্তব্য দেবেন?

মন্তব্য লিখুন

মন্তব্য লিখুন

আর্কাইভ

ডিসেম্বর ২০২০
সোমমঙ্গলবুধবৃহস্পতিশুক্রশনিরবি
« আগস্ট  
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১